অটোরিকশা ছিনতাই করে পালানোর সময় আটক ৪,

অটোরিকশা ছিনতাই করে পালানোর সময় আটক ৪

0
তুষার আহাম্মেদ- লৌহজং উপজেলার খেতের পাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে অটোরিকশা ছিনতাই করে পালানোর সময় ৪ জনকে আটক করে এলাকাবাসি।  এরপর তাদেরকে পুলিশে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনাটি ঘটে বুধবার সন্ধ্যায় মাওয়া – বালিগাঁও সড়কের খেতের পাড়া বাসস্ট্যান্ডে। 
পুলিশ সুত্রে জানাযায়, ঢাকা-মাওয়া মহসড়কের কুচিয়ামোড়া থেকে ছিনতাই কারী ৪ সদস্যের একটি দল মাওয়া আসার কথা বলে ব্যাটারী চালিত একটি অটো গাড়ী ভাড়ায় ঠিক করে। এরপর রাস্তায় যে কোন যায়গায় নেশা জাতীয় খাবার দিয়ে অটো চালককে অজ্ঞান করে তারা অটো গাড়ীটি চালিয়ে মাওয়া হয়ে বালিগাঁও বাজারের দিকে যেতে থাকে। সড়কের জোড়পূল নামক স্থানে তেমন জনসমাগম না থাকায় এবং নিরিবিলি থাকায় অটো চালককে ধাক্কা মেরে গাড়ী থেকে ফেলে দিয়ে অটোটি চালিয়ে যেতে থাকলে পিছনে থাকা একটি সিএনজি বিষয়টি দেখে ফেলে। সিএনজি চালক দ্রুত চালিয়ে গিয়ে খেতের পাড়া বাসস্ট্যান্ডে খবর দিলে লোকজন অটোটি আটক করে চ্যালেঞ্জ করলে তারা দৌড়ে পালাতে চাইলে এলাকাবাসি তাদের আটক করে লৌহজং থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে ৪ ছিনতাই কারীকে থানায় নিয়ে আসে এবং অঞ্জাত অবস্থায় অটো চালককে উদ্বার করে লৌহজং সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ৪ ছিনতাই কারী হল নড়াইল জেলার লোহাগড়া থানার চরঘোনা পাড়া গ্রামের বৃষ্ঠি আক্তার, পটুয়াখালি জেলার গলাচিপা থানার গোলখালি গ্রামের নাজমা আক্তার, ভোলার চরফ্যাসন থানার হামিদপুর গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেন ও শরিয়তপুর জেলার জাজিরা থানার সিডারচর গ্রামের সাগর ইসলাম। এই বিষয়ে লৌহজং থানায় একটি দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে।
লৌহজং থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলমঙ্গীর হোসাইন জানান, ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ৪ ছিনতাই কারীকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এই ছিনতাই কারী চক্রটি খুবই তৎপর তারা পরিকল্পনা মাফিক এসব গাড়ীর ড্রাইভারকে কখনো নেশা জাতীয় খাবার আবার কখনো হত্যা করে গাড়ী ছিনতাই করে নিয়ে যায়। এদের মাধ্যমে আমরা বাকীদের গ্রেফতারের চেষ্ঠা চালিয়ে যাচ্ছি।

Comments are closed.

%d bloggers like this: