গজারিয়ায় ছাত্রদল নেতার নেতৃত্বে চলছে খাল ভরাট!

15

তুষার আহাম্মেদ: মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় বালুয়াকান্দি ইউনিয়নের ছোট রায়পারা গ্রামে জেলা ছাত্রদল সভাপতি মোজাম্মেল হক মুন্নার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের জন্য সরকারি খাল ভরাটের অভিযোগ উঠেছে। মোজাম্মেল হক মোল্লার নেতৃত্বে স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় খাল ভরাট এর কাজ চললেও নির্বিকার প্রশাসন।

সরেজমিনে ছোট রায়পাড়া গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, ইতোপূর্বে মুন্সীগঞ্জ জেলা ছাত্রদল সভাপতি মোজাম্মেল হক মুন্নার মালিকানাধীন চারটি ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক (পিটি কনজ্যুমার ইন্ডাস্ট্রি,সান রাইজ প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রি ,হেলথ কেয়ার এগ্রো এন্ড কেমিকেল লিঃ, ইকো ফুড কালার এন্ড এরোমা ইন্ড্রাঃলিঃ) সরকারি একটি খালের বেশ কিছু অংশ ইতোপূর্বে দখল করা হয়েছিল। এবার খালের বাকি অংশ ভরাটের তোড়জোড় চালাচ্ছে মুন্নার লোকজন। গত কয়েকদিন ধরে ড্রেজার লাগিয়ে চলছে খাল ভরাট। ইতোমধ্যে দখল করা হয়েছে প্রায় দুই বিঘা সম পরিমাণ জায়গা।

স্থানীয় বাসিন্দা ইয়াকুব আলী জানান, দীর্ঘদিনের পুরানো খালটি ছোট রায়পাড়া গ্রামের কাজলী নদীর সাথে মেঘনা নদীর মধ্যে সংযোগ সাধন করেছিল। তবে প্রভাবশালীদের দখলে এখন আর খালের অস্তিত্ব নাই।

স্থানীয়রা জানায়, মুন্নার ভগ্নিপতি মুক্তার হোসেন ইউপি সদস্য এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা তার মাধ্যমে খাল ভরাটের কাজ করে যাচ্ছেন মুন্না। স্থানীয় মজিবুর রহমান নামে এক ব্যক্তির জায়গায় বালু ভরাটের নামে তার প্রতিষ্ঠান সম্প্রসারণের জন্য সরকারি খাল দখল করেছেন তিনি।

বিষয়টি সম্পর্কে বালুয়াকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শহীদুজ্জামান জুয়েল বলেন, সরকারি খাল কেউ দখল করতে পারবে না যত প্রভাবশালীই হোক না কেন তাকে খাল দখল করতে দেওয়া হবে না।

বিষয়টি সম্পর্কে জানতে গজারিয়া উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ইয়াসমিন আরা বলেন, খাল দখলের খবর পাওয়ার পর তার অফিস থেকে একজন প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন তিনি। সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রাথমিকভাবে খাল ভরাট এর সত্যতা পাওয়ায় ড্রেজার আপাতত বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। আগামী দু’একদিনের মধ্যে তাদেরকে জমির যথাযথ কাগজপত্র নিয়ে তার দপ্তরে আসতে বলা হয়েছে। যদি তারা প্রমাণ করতে পারে জমি তাদের তবে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যেতে বাধা নেই আর যদি তারা না পারে তবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments are closed.

%d bloggers like this: