গায়ে হাত সাবেক চেয়ারম্যানের

গায়ে হাত সাবেক চেয়ারম্যানের

17
তুষার আহাম্মেদ : মুন্সীগঞ্জ জেলার টংগীবাড়ী উপজেলার বেতকা ইউনিয়নের বেতকা ও খিলপাড়া দুই গ্রুপ বিশাল সংগশ্য সৃষ্টি হয়েছে ।এই সংঘর্ষের জের ধরে বেলা চারটা থেকে দুই গ্রুপে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আক্রমণ চলছে সন্ধ্যার পর থেকে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। দুই গ্রুপ ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায় যে ৫.৯.২০২১ রোজ রবিবার জমি সংক্রান্ত বিচার  মজলিস করার সময় হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। টংগীবাড়ী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে। দুই গ্রুপে ফেরাতে চেষ্টা করে যারা যারা বাসায় যাওয়ার জন্য অনুরোধ ও করেন,  এ সময় আরো উপস্থিত থাকেন টঙ্গীবাড়ী থানা ইনচার্জ মোঃ মাহাবুব আলম সহ আরও অনেক কর্মকর্তা বিন্দ ।ঘটনায় আসামি হিসেবে জানা যায় যে  বেতকা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান,  শওকত আলী মোক্তার খাঁন এর সাথে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও  সমাজ সেবক হাবিবুর রহমান হাবি বেপারী।
সে  সময় উপস্থিত ছিলেন বেতকা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান
 বাচ্চু শিকদার,সহ বিভিন্ন গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
 বেতকা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মোক্তার খাঁন হাবিবুর রহমান হবি বেপারী গায়ে হাত তোলেন, এতে করে এলাকার জনসাধারণ, ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ধ্যার পরে লাঠিসোটা নিয়ে  খিলপাড়া হতে বেতকা চৌরাস্তা ও চৌরাস্তা অবস্থান নেন। আর এক গ্রুপ বেতকা বাজারে অবস্থান করে , দুই গ্রুপ দুই
জায়গায় অবস্থান করে।ইউনিয়ন পরিষদের দিকে আগাতে থাকলে দুই গ্রুপে এক
বিরল বাধা সৃষ্টি হয়  ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ঘটনা ঘটে ও অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে বিশাল সংঘর্ষের  সৃষ্টি হয় ।এ সময়  টঙ্গীবাড়ী থানা পুলিশ স্থানান্তর করেন, ঘটনাস্থল থেকে আরো জানা যায় যে বেতকা ইউনিয়ন বাসীর একটাই কথা যে বিশিষ্ট সমাজসেবক হাবিবুর রহমান হাবি বেপারী কোন দোষ নেই। বিচার মজলিসের সময় হঠাৎ করে মুক্তার হোসেন খাঁন সাহেব চেয়ারম্যান ক্ষেপে ও ক্ষিপ্ত হয়ে হাবিবুর রহমান হবি বেপারী গায়ে হাত তুলে এতে করে  বিচার মজলিস প্রকাশ্যে এক বিশাল ঝগড়া মারামারি পর্যায়ে চলে যায় । তখন হাবিবুর রহমান হাবি বেপারী জনসাধারণকে মানিয়ে তার বাসার দিকে নিয়ে চলে আসেন।সন্ধ্যার পর থেকে রাত দশটা পর্যন্ত এমন এক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় যে বেতকা চৌরাস্তা অবস্থান করে প্রায় ৭০০ হতে ৮০০ মানুষ এক সঙ্গে একত্রিত হন। এই সকল জনসাধারণের  একটাই কথা যে এর শটিক বিচার চাই। সাবেক চেয়ারম্যান মোক্তার হোসেন খাঁন এর বিরুদ্ধে  বিভিন্ন ধরনের আরও অভিযোগ পাওয়া গেছে বলে জানান।পুলিশ প্রশাসনের কটোর বেবস্থা নেয়ার জন্য অনুরোধ করেন বেতকা ইউনিয়ন বাসি।
অবশেষে না পেরে টংগীবাড়ী থানা পুলিশের কঠোর ব্যবস্থা নেয় ,সে সময় পুলিশ ঘটনাস্থলে থাকা অবস্থায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

Comments are closed.

%d bloggers like this: