গুনগত মানের পোনা উৎপাদনকারী এক মৎষ্য চাষী”

“গুনগত মানের পোনা উৎপাদনকারী এক মৎষ্য চাষী”
কাজী বিপ্লাব হাসান : নাম তার প্রদীপ কুমার দাস। মুন্সিগঞ্জ শহরের নয়াপাড়া এলাকায় তার বাড়ি। বংশগতভাবে তিনি একজন মৎস্য ব্যবসায়ী। তার দাদু ও বাবা ছিলেন চিংড়ি মাছের ব্যবসায়ী। তিনিও প্রথম দিকে চিংড়ির ব্যবসাই করতেন। পরবর্তীতে মুন্সিগঞ্জে চিংড়ি আমদানি কম হওয়ায় তার ব্যবসায় লোকসান দেখা দেয়ায় তিনি এ ব্যবসা ছেড়ে দেন। এর পর তিনি শোল, গজার জাতীয় মাছের ব্যবসা শুরু করেন। এতেও তেমন একটা লাভ না হওয়াতে পরবর্তীতে তিনি মাছের পোনা উৎপাদনে আগ্রহী হয়ে এ পোনা চাষের উদ্যোগ নেন।
মুন্সিগঞ্জের মানিকপুর এলাকা সহ আশপাশে তার ভাড়া করা পাঁচটি পুকুর আছে। এ পুকুর গুলোতে তিনি পোনা চাষ করেন। মুন্সিগঞ্জ জেলা মৎস্য অফিস হ্যাচাড়ী হতে এবং সিরাজদিখান উপজেলার একটি মৎস্য হ্যাচারি হতে তিনি মাছের রেনু সংগ্রহ করে ৫ টি পুকুরে পোনা উৎপাদন করেন। পরর্তীতে পোনাগুলো একটু বড় হলে যারা পুকুরে মাছ চাষ করেন এ ধরনের মৎস্য চাষীদের কাছে বিক্রি করে দেন।
৮ বছর যাবত তিনি পোনা উৎপাদন করে যাচ্ছেন। তার মাছের পোনার বেশ সুনাম আছে। পোনাতে কোন রোগা বালাই না থাকাই অনেক মৎস চাষীরাই তার কাছ থেকে পোনা কিনে নিয়ে নিজ পুকুরে চাষ করেন।
সাক্ষাৎকালে প্রদীপ দাস বলেন, মুন্সিগঞ্জ শহরে আমি ৫ পুকুরে পোনা উৎপাদন করি। পোনাদের খাবার দেওয়া, দেখাশুনা করা, পুকুর পরিষ্কার করা সহ অন্যান্য কাজে আমার ৮ জন কর্মচারী আমাকে সহযোগিতা করেন। আমার কাছ থেকে অনেক মৎস্য চাষীরাই পোনা কিনে নিয়ে নিজ পুকুর চাষ করেন। আমি এমন ভাবে পোনা উৎপাদন করি যাতে এদের মাঝে কোন রোগবালাই না থাকতে পারে। এ কারনেই আমার পোনার বেশ সুনাম আছে এ শহরে।
“জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৯” উপলক্ষে গুণগত মানের পোনা উৎপাদনে শ্রেষ্ঠ পোনা চাষী হিসেবে প্রদীপ কুমার দাস পুরষ্কৃত হন। জেলা প্রশাসক মনিরুজ্জামান তালুকদারের কাছ থেকে তিনি এ পুরষ্কার গ্রহন করেন।
পোনা চাষী প্রদীপ কুমার দাস বলেন, গত ২০১৮ সালে আমি আমি জেলা মৎস অফিস হ্যাচারী হতে এবং সিরাজ দিখান মৎস্য হ্যাচারী হতে ৪০ হাজার টাকার রেনু সংগ্রহ করে আমার ৫ টি পুকুরে পোনা উৎপাদন করি। এবং প্রায় ৪ লক্ষ টাকার পোনা বিক্রি করি। রেনুর দাম কম হলেও ৮ জন কর্মচারীর বেতন ও পোনার খাবার কেনা সহ আমার ২ লক্ষ টাকা খরচ হয়ে যায়। এতে আমার লাভ হয় ১ থেকে দেড় লক্ষ টাকার মতো।
গুনগত মানের পোনা উৎপাদনে প্রদীপ কুমার দাসকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন যানাই। এবং তাকে দেখে অন্য মৎস্য চাষীরাও যেন পোনা চাষে উদ্ভুদ্ধ হন তাই তাদের স্বাগত আহবান জানাই।

Spread the love

Comments are closed.