ড্রেজার স্থাপন করে বালু বাণিজ্য শ্রীনগরে সড়কের পাশে

ড্রেজার স্থাপন করে বালু বাণিজ্য শ্রীনগরে সড়কের পাশে

2
তুষার আহাম্মেদ- শ্রীনগর-দোহার আন্ত:সড়কের শ্রীনগর বাইপাস পাটাভোগ এলাকার জশুরগাঁও সড়কে পাড়ে গড়ে তোলা হয়েছে মিনি বালু মহাল! ড্রাম ট্রাকে করে এখানে বালু ফেলে রাতের দিনে ও রাতে সমান তালে ছাড়পত্র বিহীন ড্রেজারের মাধ্যমে এসব বালু অন্যত্র বিক্রি করা হচ্ছে। গুরুত্বপূর্ণ সড়কটির ক্ষতি করে ও বালু বাহী এবস ট্রাক এখানে ঘুড়ানোর কারণে ব্যস্ততম সড়কে বিভিন্ন যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটছে। সড়কে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করে এসব বালু/মাটি বাণিজ্য করার অভিযোগ উঠে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মো. সোহেলের বিরুদ্ধে। সোহেল জশুরগাঁও গ্রামের মৃত কামাল মিয়ার পুত্র।  সে দীর্ঘদিন যাতব এভাবে বালু বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, সড়ক ও জনপথের শ্রীনগর-দোহার সড়কটির শ্রীনগর বাইপাস জশুরগাঁও মোড় সংলগ্ন উত্তর পাশে বিশাল আকারে বালুর স্তুপ করা হয়েছে। সড়কের সামান্য নিচে স্থাপন করা হয়েছে ড্রেজার। এখান থেকে ড্রেজার পাইপের মাধ্যমে পানি মেরে এসব বালু বিভিন্ন স্থানে নেওয়া হচ্ছে। পাইপের পানির তোড়ে সড়কের মাটি সরে যাচ্ছে। বালুর স্তুপের চাপায় সড়কের বেশ কিছু চারা গাছ নষ্ট হয়ে গেছে।
স্থানীয়রা জানায়, সুযোগ বুঝে দিনে ও রাতে সমান তালে ড্রেজারে করে বালু বিক্রি করা হচ্ছে। এসব বালু আনতে এখানে শত শত ড্রাম ট্রাকা আসা যাওয়া করছে। মাঝে মধ্যেই বালু নামানোর সময় সড়কে বিভিন্ন যানবাহন চলাচলে বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। সৃষ্টি হচ্ছে জ্যামজট। অনেকেই জানান, দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন তারা। এছাড়া ড্রেজারের বিকট শব্দে পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি অবৈধ ড্রেজার দিয়ে কোটি টাকার সড়কটি ক্ষতি করা হচ্ছে। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তারা।
মাটি ব্যবসায়ী মো. সোহেলের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অনেকেই তো এই ভাবে ব্যবসা করে? এ বিষয়ে জানতে সড়ক ও জনপথ শ্রীনগর জোনাল অফিস মুন্সীগঞ্জের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলী মো. সাঈদ আলমের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।
এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার ব্যারিস্টার মো. সজিব আহম্মেদ জানান, আমি এখানে নতুন যোগদান করেছি। বিষয়টি আমি অবগত হলাম। খোঁজ খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে

Comments are closed.

%d bloggers like this: