পদ্মার ভাঙনে বাড়িঘরসহ বসতভিতা বিলীন

পদ্মার ভাঙনে বাড়িঘরসহ বসতভিতা বিলীন

0

তুষার আহাম্মেদ- মুন্সিগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলায় পদ্মার তীরবর্তী এলাকাগুলো ভয়াবহ ভাঙনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। এতে উপজেলার চার ইউনিয়নের প্রায় বেশ কয়েকটি গ্রাম ইতিপূর্বে ভাঙ্গনের শিকার হয়েছে। উপজেলার হাসাইল-বানারী, দিঘীরপার, কামারখাড়া ও পাঁচগাঁও ইউনিয়নে পদ্মার তীরবর্তী গ্রামগুলোতে আতঙ্কে দিন কাটছে স্থানীয়রা।

এ ছাড়াও সদর উপজেলার শিলই, বাংলাবাজার ইউনিয়নে ভাঙন অব্যহত রয়েছে। এতে দিনে দিনে হারিয়ে যাচ্ছে ফসলি জমিসহ বাড়িঘর। হাহাকার দেখা দিয়েছে মানুষের মধ্যে। করোনার রেস শেষ হতে না হতেই নদী ভাঙ্গনে অনেকেই সব কিছু হারিয়ে পথে বসেছে।

উপজেলার কামারখাড়া ইউনিয়ন এর চৌষার গ্রামে আকস্মিক পদ্মার ভয়াবহ ভাঙন বিলীন হয়ে গেছে প্রায় ৩০ থেকে ৪০টি  বাড়িঘর ও বসতভিটা। কেউ কেউ বাড়িঘর  ভেঙে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে রাখছে। কিছু পরিবার এখনও আতঙ্ক নিয়েই বসবাস করছেন। ভাঙ্গন রোধে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ দিয়ে ভাঙ্গন রোধে চেষ্টা করছে।

উপজেলার চৌষার গ্রামের আব্দুল শেখ (৬৫) জানান, কোন কিছু আন্দাজ করার আগেই রাতে হঠাৎ পদ্মার তীব্র স্রোতে পাড় ভাঙন দেখা দেয়। এতে ঘরবাড়ি ও বসতভিটা বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে পরিবার নিয়ে বিপাকে আছেন তিনিসহ স্হানীয় আরও কিছু পরিবার ।

তিনি আরও বলেন, পরিবার নিয়ে বসতভিটা হারিয়ে অনেক কষ্টে দিন কাটাচ্ছি। আমরা স্থানীয় ও প্রশাসনের কাছে খাদ্যসহ সকল প্রকার সহযোগিতা কামনা করছি।

এ বিষয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা পারভীন জানান, ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছি। এখন জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্মকর্তাদের নদী ভাঙন এর বিষয়টি জনানো হয়েছে। তারা পরিদর্শন করেছেন।

Comments are closed.

%d bloggers like this: