ভারতে যৌতুক প্রথা বদলায়নি ছয় দশকেও : গবেষণা

1

আন্তর্জাতিক ডেস্ক  :  যৌতুক সমাজের জন্য অভিশাপ। এর ভয়াল থাবায় প্রতিনিয়ত নির্যাতিত হচ্ছেন অসংখ্য নারী, প্রাণও যাচ্ছে অনেকের। আধুনিক উন্নত সমাজ ব্যবস্থার পথে অন্যতম অন্তরায় বলে ভাবা হয় এই প্রথাকে। এটি ঠেকাতে আইনও হয়েছে বিভিন্ন দেশে। এরপরও বহাল তবিয়তে টিকে রয়েছে সর্বনাশা যৌতুক প্রথা। সম্প্রতি জাতিসংঘের এক গবেষণায় দেখা গেছে, বিগত ছয় দশকে বিশ্বের অন্যতম জনবহুল দেশ ভারতে যৌতুক প্রথার তেমন কোনো নড়চড় হয়নি। ১৯৬০-এর দশকে সেখানে যেভাবে যৌতুক দিয়ে বিয়ে হতো, আজও তার সংখ্যা প্রায় একই।

বিবিসির খবর অনুসারে, গবেষকরা ১৯৬০ থেকে ২০০৮ সালের মধ্যে ভারতের গ্রামাঞ্চলে হওয়া ৪০ হাজার বিয়ের ঘটনা বিশ্লেষণ করেন। তারা দেখতে পান, এগুলোর মধ্যে প্রায় ৯৫ শতাংশ বিয়েতেই যৌতুক দেয়া-নেয়া হয়েছে, যদিও ১৯৬১ সাল থেকেই দেশটিতে যৌতুক বেআইনি।

ভারতের প্রায় ৯৬ শতাংশ জনগোষ্ঠী বসবাসকারী ১৭টি রাজ্যের যৌতুক সংক্রান্ত পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করেছেন গবেষকরা। তারা বিয়ের সময় বরপক্ষ কনেপক্ষকে দেয়া উপহারের সঙ্গে কনেপক্ষ বরপক্ষকে দেয়া উপহারের পার্থক্যকে যৌতুক হিসেবে ধরেছেন। স্বাভাবিকভাবেই দেখা গেছে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কনেপক্ষের খরচের পরিমাণ বরপক্ষের তুলনায় অনেক বেশি।

গবেষণায় দেখা গেছে, দশকের পর দশক ধরে ভারতে যৌতুকপ্রথা অনেকটাই স্থিতিশীল। তবে ১৯৭৫ সালের আগে এবং ২০০০ সালের পরে এর পরিমাণ কিছুটা বেড়েছিল।

গবেষকরা দেখেছেন, ভারতীয় বিয়েতে বরের পরিবার কনের পরিবারকে গড়ে পাঁচ হাজার রুপির উপহার দেয়। সেখানে কনের পরিবারের খরচ এর প্রায় সাতগুণ বেশি। এসব বিয়েতে কনেপক্ষ গড়ে ৩২ হাজার রুপির উপহার দিয়েছে বরপক্ষকে। অর্থাৎ প্রতিটি বিয়েতে যৌতুকের পরিমাণ গড়ে ২৭ হাজার রুপি।

যৌতুকের ক্ষতিকর এই প্রভাব সাময়িক নয়, বরং তা পরিবারগুলোর ওপর দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব ফেলে। ২০০৭ সালের হিসাবে, ভারতের গ্রামাঞ্চলে যৌতুকের গড় পরিমাণ পরিবারগুলোর বার্ষিক আয়ের প্রায় ১৪ শতাংশের সমান।

২০০৮ সালের পর থেকে এখন পর্যন্ত সময়টুকুতে ভারতের অনেক কিছুই বদলেছে। তবে গবেষকরা বলছেন, সেখানে যৌতুক দেয়া-নেয়ার প্রথায় খুব একটা পরিবর্তন আসেনি।

গবেষণায় দেখা গেছে, ভারতীয় সমাজে হিন্দু ও মুসলিমদের তুলনায় খ্রিস্টান এবং শিখ ধর্মাবলম্বীদের মধ্যে যৌতুক লেনদেনের হার অনেক বেশি।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কেরালায় যৌতুকের হার সর্বোচ্চ। হরিয়ানা, পাঞ্জাব, গুজরাটের মতো রাজ্যগুলোতেও যৌতুক লেনদেন বাড়তে দেখা গেছে। বিপরীতে ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ, তামিলনাড়ু ও মহারাষ্ট্রে যৌতুকের হার কিছুটা কমেছে।

Comments are closed.

%d bloggers like this: