Ultimate magazine theme for WordPress.

মুন্সিগঞ্জের হরগঙ্গা কলেজে পালিত হল বসন্তবরণ ও পিঠা উৎসব

0 36

 

বসন্তবরণ উৎসবে অতিথিরা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ “ওরে গৃহবাসী খোল, দ্বার খোল, লাগলো যে দোল” ১৩৩৭ বঙ্গাব্দে রচিত রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ফাল্গুনের উপরে লেখা লেখনি আজও আমাদের মনে দোল দিয়ে যায়। এই দোলকে মনে লালন করে বুধবার সকাল থেকেই শুরু হয় মুন্সিগঞ্জের সরকারি হরগঙ্গা কলেজে বসন্ত বরণ উৎসব। বসন্তবরণ উৎসবে কলেজের প্রবেশ দ্বার দিয়ে নাজিম উদ্দিন চত্ত¡রে ঢুকতেই চোখে পড়ে নানা রঙ্গে ও ঢঙ্গে সজ্জিত পিঠার স্টল। মুহুর্তের মধ্যেই অতিথিদের আগমন ঘটে এ উৎসবে এবং শিক্ষার্থীদের মধ্যে আনন্দ উল্লাস জেগে ওঠে। সরকারি হরগঙ্গা কলেজের সঙ্গীতচক্রের শিল্পীদের কন্ঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মধ্যদিয়ে শুরু হয় বসন্তবরণের মুল অনুষ্ঠান। এরপর সংগীত পরিবেশনার পাশাপাশি চলে অতিথিদের অভিব্যক্তি, আলিফ ও মাটির পরিবেশনায় নৃত্যানুষ্ঠান, পিঠার স্টল পরিদর্শন ও শ্রেষ্ঠ স্টল নির্বাচন।

 

অনুষ্ঠানে বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নাজমুল হুসাইনের সঞ্চালনায় বসন্তবরণ উৎসবে অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মীর মাহফুজুল হক, জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম, ড. ইয়াজ উদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ গাজী তাওহীদুজ্জামান, শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক মো: সফিকুল ইসলাম ও বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল হামিদ মোল্লা। এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর নাসিমা আহম্মেদ, ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক তুহিন কুমার মুখোপাধ্যয়, সহযোগী অধ্যাপক অসিত কুমার সাহা, হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোঃ আঃ মান্নান প্রধান, সহকারী অধ্যাপক মাহবুব আলম, ফারুক মিয়া, ময়েজ উদ্দিন মোহাম্মদ জাকির হোসেন, ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোছাঃ সানজিদা খাতুন, সহকারী অধ্যাপক তানিয়া আফরোজ, মুহাম্মদ খালেদ উল হাসান, বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নিশাত নাহার, মাহফুজা বেগম, সমাজকর্মের সহকারী অধ্যাপক মোঃ ফারুক হোসেন ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোঃ এনামুল হক, সহকারী অধ্যাপক সুশান্ত কুমার রায় সহ কলেজের শিক্ষকমন্ডলী ও শিক্ষার্থীরা।

বসন্তবরণ উৎসবে বেলুন উড়িয়ে শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন অতিথিরা

জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা তার অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, তোমরা নিজেকে ভালবাস। নিজেকে ভালবাসতে শিখলে তোমরা দেশকে ভালবাসতে পারবে। নিজেকে তৈরী করতে পারবে। দেশের কল্যাণ বয়ে আনতে পারবে। সকলকে ভালবাসা দিবসের শুভেচ্ছা।
অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মীর মাহফুজুল হক বলেন, আজকের এই বসন্তবরণ ও পিঠা উৎসবে যারা উপস্থিত হয়েছে তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানাই। এ উৎসবের মাধ্যমে আমাদের দেশীয় সংস্কৃতি ফুটে উঠেছে। গ্রাম বাংলায় যে সকল পিঠা তৈরী করা হয় তা শহুরে লোকজন দেখে বা জানতে পারে না। আর এ বিষয়টিকেই তুলে ধরার জন্য আজকের এই আয়োজন যেন সকলেই এ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারেন।
এ উৎসবে ১৩টি বিভাগকে স্টল দেওয়া হয়। তারা স্টলে বিভিন্ন ধরণের বাংলার গ্রামে তৈরী পিঠাগুলোকে উপস্থাপন করে। অতিথিরা স্টল পরিদর্শন করে এবং পরবর্তীতে শ্রেষ্ঠ স্টল নির্বাচন করেন। এ উৎসবে সমাজকর্ম বিভাগ প্রথম, বাংলা বিভাগ দ্বিতীয়, ব্যবস্থাপনা বিভাগ তৃতীয় ও ভূগোল বিভাগ চতুর্থ স্থান অধিকার করে।

মুন্সিগঞ্জ ভয়েজ ডট কম
 
 

Leave A Reply

Your email address will not be published.