মুন্সিগঞ্জে ১০ বছরের শিশুকে ধর্ষণকারী সৎ ভাই রুবেল গ্রেফতার

0 53

 

আবু হানিফ রানা: মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের আধারিয়া তলা গ্রামে শিলা (ছদ্মনাম) (১০) নামের শিশুকে ধর্ষণ করেছে সৎ ভাই। রবিবার দুপুরে আধারিয়া তলা গ্রামের ভাড়াটিয়া বাসায় এ ঘটনা ঘটে। রুবেল (২০) নামের যুবক তার সৎ বোনকে ধর্ষণ করেছে। জাতীয় অনলাইন প্রেসক্লাবের ক্রাইম টিম পুলিশের সহযোগিতায় ধর্ষক রুবেলকে গ্রেফতার করে। রুবেলের বাবা খলিল খা ইতোমধ্যে ৭টি বিয়ে করেছেন।

শিশুটির মা জানান, আমার স্বামী খলিল খাঁন গ্রামে থাকে। বরিশাল জেলার বাকেরগঞ্জ থানার শাহেবপুর গ্রামে। আমিও সেখানে থাকতাম। আমি তার দ্বিতীয় স্ত্রী। আমার স্বামী আমাকে ভরণ পোষণ না দিয়ে আবারও বিয়ে করে। বাধ্য হয়ে ১০ বছরের মেয়ে ও ১২ বছরের পুত্রকে নিয়ে ২ মাস আগে মুন্সীগঞ্জে আসি। ক’দিন পর আমার স্বামীর আগের ঘরের সন্তান রুবেল (২০) আমার বাসায় চলে আসে। রুবেল ঠিকমত খেতে পেতো না। আমি তাকে আমার ঘরে আশ্রয় দিয়েছি, চাকুরী দিয়েছি। আমি মিলে কাজ করে বেঁচে আছি শুধু সন্তান দুটোকে মানুষ করার জন্য। প্রতিদিনের মত আজও আমি কাজে যাই। দুপুরে বাসায় আসি খাবার খেতে এই সময়ে বাথরুমে গিয়ে দেখি রক্তে ভেসে যাচ্ছে। পাশে দাঁড়িয়ে মেয়েটি কান্না করতেছে। পরে জানতে পারলাম রুবেল (২২) আমার মেয়ের সাথে খারাপ কিছু করেছে। আমি রুবেলকে আপন ছেলে ভেবে ঘরে জায়গা দিয়েছি ও আমার এমন সর্বনাশ করলো বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন শিশুটির মা।

 

ধর্ষণের শিকার শিশু তার সাথে ঘটে যাওয়ার বর্ণনা দিয়ে বলেন, রুবেল ভাই আমাকে জোর করে পায়জামা খুলে খারাপ কাজ করে। আমার প্রস্রাবের জায়গা দিয়ে রক্ত পড়ছিলো তবুও ছাড়েনি আমাকে। আমি অনেক ডাকা ডাকি করেছি কেউ আসেনি। দরজা বন্ধ করে জোরে সাউন্ড দিয়ে টিভি ছেড়ে রেখেছিলো রুবেল।
মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে কর্তব্যরত ডা: মো: ইফতিয়ার ইরফান জানান, শিশুটির গোপনাঙ্গ দিয়ে প্রচুর রক্ত ক্ষরণ হয়েছে। আমরা প্রাথমিকভাবে রক্ত বন্ধ হওয়ার চিকিৎসা দিয়েছি।

এ বিষয়ে মুন্সিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর হোসাইন জানান, ধর্ষক রুবেলের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা হয়েছে। ধর্ষক রুবেল তার অপরাধ স্বীকার করেছে। আগামীকালকে কোর্টে চালান করা হবে। ধারণা করা হচ্ছে রুবেলের বিরুদ্ধে ঢাকায় মামলা রয়েছে। তদন্ত করে বিষয়টি জানা যাবে।
মুন্সিগঞ্জ ভয়েস ডট কম

 
 

Leave A Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: