মুন্সীগঞ্জের কাজীকসবায় ছাত্রলীগ নেতার মারধরে মারা গেলেন মোঃ নয়ন মিজি

73

তুষার আহাম্মেদ- মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় ছাত্রলীগ নেতার গন-পিটুনিতে আহত যুবক মারা গেছে। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বেলা সাড়ে দশটার দিকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় ওই যুবক। নিহত যুবকের নাম মো. নয়ন মিজি (৩৫)। নয়ন সদর উপজেলার রামপাল ইউনিয়নের উত্তর কাজী কসবা গ্রামের প্রয়াত আব্দুল বাতেন মিজির ছেলে। নয়নের দুইটি কন্যা সন্তান ও স্ত্রী রয়েছে।

নিহতের ছোট বোন পিংকি আক্তার জানান, বুধবার বিকেল চারটার দিকে তার ভাই বাড়ি থেকে বের হয়। তার আধা ঘণ্টা পরেই জানতে পারেন উত্তর কাজী কসবা প্রাইমারি স্কুলের সামনে থেকে রামপাল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রান্ত শেখ ও তার সহযোগী রনি, কাঞ্চন গংরা তার ভাইকে তুলে নিয়ে গেছেন। ঘটনা শুনতে পেয়ে তারা সিপাহীপাড়া এলাকার একটি স্কুলে কাছে গিয়ে দেখেন প্রান্তরা কাঠের ডাসা দিয়ে নয়নকে পেটাচ্ছেন। আমরা ভাইকে বাচাঁনোর চেষ্টা করি। রাস্তায় গিয়ে পুলিশ ডাকি। পরে ওরা পালিয়ে যায়।

নিহতের ছোট মেয়ে নিজুম (১০) জানায়, আমাদের চোখের সামনে আমার বাবাকে কিভাবে মারলো। বাবার হাত-পা, মাথা গুড়িয়ে দিয়েছে। আমরা কত হাতে পায়ে ধরলাম। আমার বাবাকে ওরা ছাড়লোনা। যখন ছাড়লো বাবা আর চোখ খুলে দেখলো না। আমার বাবার হত্যাকারীদের ফাঁসি চাই।

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নয়ন এলাকায় মুরগি ফার্মের ব্যবসা করতেন। পাশাপাশি কবুতর পালতো। গত কয়েক মাস আগে তার ফার্ম থেকে রামপাল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রান্ত শেখ, শোভন, কাঞ্চন, রনিরা কবুতর, মুরগী চুরি করে। এ নিয়ে নয়নের সাথে তাদের দ্বন্দ্ব হয়। এগুলো নিয়ে এলাকায় শালীস হয়। সেই থেকে নয়নের সাথে দ্বন্দ চলছিল। গতকাল বুধবার এর জের ধরেই মূলত প্রান্ত শেখরা,নয়নকে তুলে নিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে দাবি স্থানীয়দের।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুন্সীগঞ্জ সদর সার্কেল মিনহাজ উল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় গতকাল বুধবার রাতেই একটি মামলা হয়েছিল। সে মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তর করা হবে। এখন পর্যন্ত নাহিদ ও তৌকির নামে দু’জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

Comments are closed.

%d bloggers like this: