মুন্সীগঞ্জের শিলইয়ে ট্রলার ভাড়া নিয়ে সংঘর্ষে ১ জন নিহত, ৫ জন আহত

মুন্সীগঞ্জের শিলইয়ে ট্রলার ভাড়া নিয়ে সংঘর্ষে ১ জন নিহত, ৫ জন আহত

26

তুষার আহাম্মেদ- মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় ট্রলার ভাড়া নিয়ে কথা কাটাকাটির জেরে হামলায় এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।আজ বৃহস্পতিবার (২২জুলাই) দুপুরে সদর উপজেলার শিলই ইউনিয়নের চর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্যের সন্ত্রাসী বাহিনীর হামলায় ওই বৃদ্ধ নিহত হয়। এ সময় ৫ জন গুরুতর আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। নিহত ব্যাক্তির নাম আলিম সরকার (৬০)।

আহতরা হলো নিজাম বেপারী (৩৫), মোঃ হৃদয় (১৭),জগতারা (৪০),সুমি (২৫),ও হালিমন (৬০)।
তাদের মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তাদের কোরবানীর জন্য ব্যবহৃত ছুরি দিয়ে কোপানো হয়েছে বলে আহতরা জানিয়েছেন।

নিহতের ভাগিনা নিজাম বেপারী বলেন,আমার ছোট ভাই মহিউদ্দিন ব্যাপারি দিঘিরপার বাজার থেকে চরপাড়া এলাকা পর্যন্ত ভাড়ায় ট্রলার চালায়। দিঘিরপার বাজার থেকে চর বেহের পাড়া এলাকায় আসতে ৩০ থেকে ৪০ মিনিট সময় লাগে। জনপ্রতি ভাড়া ৩০ থেকে ৪০ টাকা। রিজার্ব নিয়ে আসলে কমপক্ষে ৫০০ টাকা দেওয়ার কথা। আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে আমাদের ওয়ার্ড সদস্য রিয়াদুল ইসলাম হাকিম মহিউদ্দিনের ট্রলারে বসেন। সে সময় তিনি মহিউদ্দিনকে যাত্রী না নিয়ে ট্রলার চালাতে বলেন। এলাকায় এসে আমার ভাইকে ১০০ টাকা ভাড়া দেন। আরো ভাড়া দাবি করলে মহিউদ্দিনকে চড়, থাপ্পড়, কিল ঘুষি মারেন ইউপি সদস্য রিয়াদুল হাকিম।

বাড়িতে এসে বিষয়টি আমাদের ও আমার মামা আলীম সরকারকে জানায় মহিউদ্দিন। আমার মামা এ ঘটনার বিচার চেয়ে চিল্লাপাল্লা করেন। এতে অপমান বোধ করে ইউপি সদস্য।পরে এর প্রতিশোধ হিসেবে দুপুর সাড়ে ১২ টায় ইউপি সদস্য লোকজন নিয়ে বেহেরপাড়া এসে হামলা চালালে ঘটনাস্থলেই আলিম সরকার (৬০) ইউপি সদস্যর লোকজনের লাঠির আঘাতে মারা যায় ও আরো ৫ জন আহত হয়।এর মধ্যে নিহত আলিম সরকারের স্ত্রী ও কন্যা রযেছে। নিহতের লাশ মযনাতদন্ত্রের জন্য মুন্সিগঞ্জ সদর হাসপাতালে অানা হয়েছে।

ইউনিয়নটির সংরক্ষিত নারী সদস্য ও স্থানীয় বাসিন্দা রুমা আফরোজ বলেন, ঘটনাটি শুনতে পেরেছি। একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে সামান্য ট্রলার ভাড়ার জন্য একটি পরিবারের উপর দুই দফা হামলা চালানো হলো।
পরিবারের অভিভাবক আলীম সরকার পরিবারের অন্য সদস্যদের রক্ষা করতে গিয়ে প্রাণ হারালেন। এমন কাজকে ঘৃণা জানাই। আমরা এই দোষী জনপ্রতিনিধির বিচার চাই।

এ ঘটনায় পর্যন্ত ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব আবুবক্কর সিদ্দিক বলেন ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

মুন্সিগঞ্জ সদর থানার পরিদর্শক( তদন্ত) মাে. রাজিব খান বলেন, ঘটনাটি জানার পর পুলিশ সেখানে যায়। এ ঘটনার পর থেকে ইউপি সদস্য পলাতক রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Comments are closed.

%d bloggers like this: