মুন্সীগঞ্জে বন্যায় পানিতে ঘর বন্দি চার হাজার মানুষ

মুন্সীগঞ্জে বন্যায় পানিতে ঘর বন্দি চার হাজার মানুষ

7

তুষার আহাম্মেদ- মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলায় বন্যার ভয়াবহ রূপ দেখা দিয়েছে। উপজেলার চার ইউনিয়নের দুই শ পরিবারের প্রায় চার হাজার লোক পানি বন্দি  হয়ে ঘরে রয়েছে।

বিশুদ্ধ পানি, খাবার ও গো-খাদ্যের সংকটে মানবেতর জীবন যাপন করছে এসকল মানুষেরা।

পদ্মার পানির তোড়ে হাসাইল-বানারী, কামারখাড়া, দিঘিরপাড়, পাঁচগাও ইউনিয়নের কয়েক শত পরিবারের বসত বাড়ি, মসজিদ, সড়ক সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের ঝুকিতে রয়েছে আরও মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল সহ সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

বৃহস্পতিবার  (৯ আগস্ট) উপজেলার হাসাইল-বানারী ইউনিয়নের চরাঞ্চলের বানারী গ্রামে গিয়ে দেখা যায় বন্যায় পানিবন্দি হয়ে রয়েছে দুইশত পরিবার। বিশুদ্ধ পানি, খাদ্য ও গো-খাদ্য সংকটে রয়েছেন এ সকল পানিবন্দি সাধারণ মানুষ।

নদীর পানি প্রবেশ করায় চরাঞ্চলের সড়কগুলো সহ বিভিন্ন বাড়িঘর পানিতে ডুবে গেছে। এতে দুভোর্গে পড়েছে সাধারণ মানুষ। অসহায় এ সকল সাধারণ মানুষেরা না খেয়ে  ও দিন পার করছে।

পদ্মার নদী ভাঙনে অনেকে ঘর বাড়ি হারিয়ে খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। উপজেলা প্রশাসন থেকে কিছু সংখ্যক পরিবারকে খাদ্য সহযোগিতা ও পানি বিশুদ্ধ করণের ট্যাবলেট দেয়া হয়েছে।

হাসাইল-বানারী ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আলী আকবর ঢালী জানান- এখনো সরকার থেকে কোন ত্রাণ সামগ্রী পাই নাই।

উপজেলা প্রসাশন থেকে নামের তালিকা চেয়েছে। কিছু নামের তালিকা দিয়েছি। আরও ২শত নামের তালিকা দিবো। পানি বন্দি মানুষ গুলো অসহায় দিন যাপন করছে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা পারভীন জানান- নদী গর্ভে বিলীন হওয়া অসহায় দরিদ্র পরিবারের মাঝে চাউল ও পানি বিশুদ্ধ করার জন্য ট্যাবলেট দেয়া হয়েছে। যারা পায় নাই তাদের তালিকা ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি সদস্যদের কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে। তালিকা পেলে দ্রুত সময়ের মধ্যে  তাদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী ও পানি বিশুদ্ধ করণের ট্যাবলেট বিতরণ করা হবে।

Comments are closed.

%d bloggers like this: