Ultimate magazine theme for WordPress.

মুন্সীগঞ্জ সদরের বাগবাড়ীতে জলাবদ্ধতায় জনসাধারন চরম দুর্ভোগে

0 23

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বাগবাড়ীতে জলাবদ্ধতায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দারা। সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের ৭নং ওর্য়াডের দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতার জন্য বাগবাড়ি আনছাকারী বাড়ি হতে গোসাইবাগ নূরালী মাদবর বাড়ি পর্যন্ত যে খালটি অতিবাহিত হয়েছে আর সেই সরকারী খালের দুইপাশে অবৈধ ভাবে স্থাপনা তৈরী করার ফলে খালটি সরু হয়ে পানি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে বৃষ্টির মৌসুমে অল্প বৃষ্টি হলেই গোসাইবাগ, বাগবাড়ি, মাদবর বাড়ি, বীরবাড়ি সহ অনেক নিচু বাড়িতে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। জলাবদ্ধতায় চরম দুর্ভোগের শিকার এ সকল এলাকার বাসিন্দারা।

গোসাইবাগের বাসিন্দা আনোয়ার আলী ও আমির হোসেন বলেন এ খালিটি যদি সম্পূর্ণ ভাবে খুলে দেয়া হয় তাহলে আমাদের গ্রামের মাঝে যে পুকুরটি আছে এ পুকুরটিতে মাছ চাষ করা যাবে। মশা থাকবে না, জলাবদ্ধতা থাকবে না আমরা অনেক সুন্দর ভাবে চলাচল করতে পারবো।
প্রকল্প এলাকায় ঘুরে দেখার সময় স্থানীয় গোলাম কিবরিয়া নামের এক ব্যক্তির সাথে আলাপকালে তিনি প্রতিবেদককে জানান, আমরা চেস্টা করছি সরকারী খাল দখল করে যারা জনগনের ভোগান্তির সৃস্টি করছে, তাদের সাথে আইনগত ভাবে লড়াই করে জলাবদ্ধতার হাত থেকে জনগনকে মুক্ত করার জন্য। এক সময় অবৈধ স্থাপনা ভাঙ্গা হয়েছিল, বাগবাড়ির রুহুল আমিন, বিট্টা গোসাইবাগের মহিউদ্দিন আহমেদের ও শফি উদ্দিনের।

এ সময় সদর থানা বিএনপির সভাপতি মহিউদ্দিন বলেন আমার অংশে সরকারী খালের দুইফুট জায়গা পরেছে প্রয়োজনে আমি তা মুক্ত দেব স্থাপনা সরিয়ে দিয়ে। তবে শুধু এই খালটি উদ্ধার করলেই কি জলাবদ্ধতা দূর হবে? বাগবাড়ি, মিরেশ্বরাই এর খালটি কোথায় চলে গেল এটাও দেখতে হবে। প্রশাসন কেন এই সরকারি খালটি উদ্ধারে ভূমিকা রাখছে না এমন প্রশ্নও করেন এলাকাবাসী।
পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হাজী গোলাম মোস্তফা বলেন আমার ইউনিয়নের জনগনের ভালোর জন্য আমার এ উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যহত থাকবে ।এদিকে খাল কাটাকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসী মনে যেন স্বস্তি ফিরে এসেছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.