সংবাদ প্রকাশের পর শ্রীনগরে পদ্মার তীরে অবৈধ ড্রেজার অপসারণ

সংবাদ প্রকাশের পর শ্রীনগরে পদ্মার তীরে অবৈধ ড্রেজার অপসারণ

5
তুষার আহাম্মেদ- শ্রীনগর উপজেলার ভাগ্যকুল ইউনিয়নের কামারগাঁও বাজার সংলগ্ন পদ্মা নদীর তীরে অবৈধ ড্রেজারটি অপসারণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে কামারগাঁওয়ে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ব্যারিষ্টার মো. সজিব আহমেদ অভিযান চালিয়ে ছাড়পত্রবিহীন ড্রেজারটি অপসারণ করেন। এ সময় অবৈধভাবে ড্রেজার স্থাপনকারী ও মাটি ব্যবসায়ী মো. জহির বেপারী ওরফে জহের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আসার খবর পেয়ে সটকে পরে।
এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর বুধবার বিভিন্ন দৈনিক পত্রিকায়  “শ্রীনগর কামারগাঁওয়ে পদ্মার তীরে ড্রেজার বাণিজ্য” শিরোনামে জহেরের অবৈধ ড্রেজার ও বালু সংক্রান্ত বিষয়ে সচিত্র প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নজরে আসে।
ভাগ্যকুল ভূমি সহকারী কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এসিল্যান্ড স্যার ঘটনাস্থলে এসে জহেরের ড্রেজারটি অপসারণ করেছেন।
ড্রেজারটি অপসারণ করায় শ্রীনগর উপজেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানায় এলাকাবাসী। তারা মনে করেন, সদ্য যোগদানকৃত উপজেলা সহকারী কমিশনার ব্যারিষ্টার মো. সজিব আহমেদ এরই মধ্যে ভাগ্যকুল এলাকা থেকে বেশ কয়েকটি অবৈধ ড্রেজার অপসারণ করায় অত্র এলাকাবাসীর দুর্ভোগ অনেকাংশে লাঘব হচ্ছে।
উল্লেখ্য, কামারগাঁও এলাকার প্রভাবশালী জহির বেপারী ওরফে জহের অবৈধভাবে পদ্মা নদীর তীরে ড্রেজার স্থাপন করে দীর্ঘ ৫/৬ মাস ধরে বালু ব্যবসা করে আসছিল। একদিকে জহেরের নিয়ন্ত্রণাধীন ছাড়পত্রবিহীন ড্রেজার মেশিনের বিকট শব্দে নদীর তীরবর্তী বসবাসকারীরা বাড়িতে যেমন রাতে ঘুমাতে পারছিলেন না। অপরদিকে বসতবাড়ি ও রাস্তার ওপর দিয়ে যত্রতত্রভাবে ড্রেজার পাইপ লাইনের সংযোগ দেওয়ার কারণে যাতায়াতে এলাকাবাসীর ভোগান্তির শিকার হচ্ছিল। এছাড়াও অবৈধভাবে ড্রেজার বাণিজ্যের কারণে নদীর পাড়ের একটি কাঁচা রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়।

Comments are closed.

%d bloggers like this: